ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৬

ইউনিজয় ফনেটিক
ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরণ হবে কি শাকিলের?

2016-11-30

মোহাম্মদ তবারক হোসেন শাকিল, স্বপ্ন দেখেছিলেন চিকিৎসক হয়ে জনগণের সেবা দেবেন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অনেক পথ পাড়ি দিয়ে চিকিৎসা শাস্ত্র শিক্ষার জন্য ভর্তি হয়েছিলেন বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে (শজিমেক)। কিন্তু হেপাটোলিথিয়াসিস নামক এক দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হওয়ায় সেই স্বপ্নে ঘুণ পোকা বাসা বেধেঁছে। এদিকে একমাত্র অভিভাবক বাবার আকস্মিক মৃত্যুতে ব্যয়বহুল চিকিৎসার জন্য অর্থের অভাবে শাকিলের চিকিৎসা করানো সম্ভব হচ্ছে না। একজন ভবিষ্যতের চিকিৎসককে মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষার জন্য সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা চেয়েছেন শাকিল। জানা যায়, চট্টগ্রাম জেলার মীরসরাই উপজেলার পশ্চিম হিনগুলি গ্রামের মৃত গোললার রহমানের ছেলে শাকিল। চার ভাই-বোনের মধ্যে তৃতীয় সে। বড় বোনের বিয়ে হয়েছে আর ছোট দুই বোন লেখাপড়া করছে। ২০১১ সালে বগুড়া মেডিকেলে ভর্তি হয় শাকিল। ২০১৩ সালে তৃতীয় বর্ষে পড়াকালীন পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি তার বাবা স্ট্রোক করে মারা যান। এই শোক সইতে না সইতে চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্নে বিভোর শাকিলের দেখা দেয় দুরারোগ্য হেপাটোলিথিয়াসিস। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, শাকিলের এ রোগের লিভার প্রতিস্থাপন করতে হবে। এ জন্য তাকে যেতে হবে সিঙ্গাপুর অথবা দিল্লিতে। চিকিৎসার জন্য ৫০ লাখ টাকার প্রয়োজন। কিন্তু অভিভাবকহীন পরিবারের পক্ষে এ টাকা যোগাড় করা অসম্ভব। সেকারণে শাকিলের চিকিৎসায় স্থবিরতা নেমে আসে। বর্তমানে শাকিল ঢাকা বারডেম হাসপাতালের হেপাটোলিথিয়াসিস বিশেষজ্ঞ বিভাগীয় প্রধান ডা. মোহাম্মদ আলীর তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ বিষয়ে তার চিকিৎসক বলেছেন, দ্রুত সময়ে শাকিলের লিভার প্রতিস্থাপন করতে না পারলে অবস্থার চরম অবনতি ঘটবে। তাই একমাত্র ছেলের চিকিৎসার জন্য শাকিলের মা হোসনে আরা সমাজের বিত্তবানদের কাছ থেকে আর্থিক সহযোগিতা চেয়েছেন। শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. আহসান হাবিব জানান, শাকিল ছাত্র হিসেবে অত্যন্ত ভালো। সে বগুড়া মেডিকেলে ২০১৩ সালে লেখাপড়া করা অবস্থায় হেপাটোলিথিয়াসিস নামক এক দুরারোগ্য রোগে আক্রান্ত হয়। তাই আর্থিকভাবে সহায়তা করে একজন ভবিষ্যৎ চিকিৎসককে মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করা প্রয়োজন।

মুক্তমত