বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে ডিএমপি
নিজস্ব প্রতিনিধি

2017-11-11

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আগামীকাল রোববার বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। তবে সমাবেশের অনুমতির সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে ২৩টি শর্ত। সমাবেশের অনুমতি পাওয়ার পর দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপি। সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে আনার চলমান আন্দোলনকে সুসংহত করার ক্ষেত্রে, জনগণের কাছে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে এই সমাবেশ গুরুত্বপূর্ণ। দুপুরে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের গণমাধ্যম শাখার কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি চেয়ে করা আবেদনের বিষয়ে জানতে আজ শনিবার সকালে ডিএমপির কার্যালয়ে যান বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী এবং প্রশিক্ষণবিষয়ক সম্পাদক মোশাররফ হোসেন। পরে ডিএমপির পক্ষ থেকে সমাবেশের অনুমতিপত্র দেওয়া হয় তাঁদের। ‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস’পালনে ৮ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি চেয়েছিল বিএনপি। কিন্তু ওই দিন সমাবেশের অনুমতি মেলেনি। পরে ১২ নভেম্বর সমাবেশের অনুমতি চেয়ে আবেদন করে দলটি। আজ ডিএমপির পক্ষ থেকে অনুমতি দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হলো। শর্তে যা যা আছে, * বিকেল ৫টার মধ্যে সমাবেশ শেষ করতে হবে। * লাঠি-সোঁটা,ব্যানার,ফেস্টুনের আড়ালে লাঠি-রড বহন করা যাবে না। * মিছিল নিয়ে সমাবেশে আসা যাবে না। * উসকানিমূলক কোনো বক্তব্য প্রদান বা প্রচারপত্র বিলি করা যাবে না। * সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন সংলগ্ন স্থানে অনুষ্ঠানের যাবতীয় কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখতে হবে। * সমাবেশের নির্ধারিত সময়ের আগে উদ্যান বা তার আশপাশের রাস্তা-ফুটপাতে সমবেত হওয়া যাবে না। * যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়-এমন কিছু করা যাবে না। * নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠানস্থলের অভ্যন্তরে ও বাইরে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে হবে। * নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় অগ্নি নির্বাপনের ব্যবস্থা রাখতে হবে। * অনুমোদিত স্থানের বাইরে সাউন্ড বক্স ব্যবহার করা যাবে না। * ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত আসে-এমন কোনো ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন,বক্তব্য দেওয়া বা প্রচার করা যাবে না। * রাষ্ট্রবিরোধী, আইনশৃঙ্খলা পরিপন্থী বা জননিরাপত্তাবিরোধী কার্যকলাপ চালানো যাবে না।

বাংলাদেশ
সর্বশেষ